Home MINDSET একটি মর্মস্পর্শী গল্প!

একটি মর্মস্পর্শী গল্প!

31
0

একটি মর্মস্পর্শী গল্প!
হরেকালা হাজাব্বা (Akshara Santha Harekala Hajabba) সম্পর্কে।

এই নাম হয়তো আগে কেউ শোনেনি। আমি গুগল করেছি এবং উইকিপিডিয়া সহ তার সম্পর্কে অনেক রেফারেন্স পেয়েছি।

একজন খুব বড় শিল্পপতি তার জীবনকে ফল বিক্রেতা হরেকাল হাজাব্বার সাথে তুলনা করেছেন। এই শিল্পপতি বিশ্বের চারটি সেমিকন্ডাক্টর কোম্পানির মালিক এবং একজন অভিজাত শিল্পপতি যিনি আইআইটি চেন্নাই থেকে স্নাতক হয়েছেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে এমএস করেছেন। তিনি একটি মর্মস্পর্শী নিবন্ধ লিখেছেন।

এই সুন্দর নিবন্ধটি পড়ুন:-

“যখন থেকে আমি হরেকালা হাজাব্বা সম্পর্কে টুইটটি দেখেছি, আমি খুব অদ্ভুত এবং অস্বস্তিকর বোধ করছি। আমার ঘুম হচ্ছেনা। ভোর সাড়ে ৫টায় উঠে ভাবলাম কারো সাথে আমার মনের কথা শেয়ার করব। কিন্তু আমার স্ত্রী বাড়িতে নেই, আর আমার বাবা ও মেয়ে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন। আমি এত ভোরে তোমাদের কাউকে কল করতে পারি না। তাই, আমি ভাবলাম আমার মনে যা আসছে তাই টাইপ করা উচিত।

হরেকাল হাজাব্বা কী করছেন তার গভীরে যাওয়ার পরে, আমি তার সম্পর্কে যা জানতে পারি তা হল:-

তিনি ম্যাঙ্গালোরের একজন ফল বিক্রেতা। অর্থ উপার্জন এবং পরিবারের খরচ যোগানোর জন্য তিনি অল্প বয়সে স্কুল ছেড়ে দেন। তার বয়স ৬৫ বছর। এবং প্রতিদিন প্রায় ১০০-১৫০ টাকা আয় করেন। ৫ জনের একটি পরিবারের দায়িত্ত্ব তার ওপর।

ফল বিক্রির অর্থ থেকে তিনি তার গ্রামবাসী এবং একটি স্থানীয় মাদ্রাসার সহায়তায় তার গ্রামে একটি স্কুল তৈরি করেছিলেন। ৮ নভেম্বর ২০২০-তে, তিনি ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মানগুলির মধ্যে একটি “পদ্মশ্রী”-তে ভূষিত হন।

সংক্ষেপে, এটি তার জীবনবৃত্তান্ত। এতে কোন চিত্তাকর্ষক শব্দ নেই। শীর্ষ স্তরের ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয় বা বিদেশী কলেজ থেকে কোনও অভিনব ডিগ্রি নেই, কোনও প্রযুক্তি, বিনিয়োগ ব্যাঙ্কিং, উদ্যোগের অভিজ্ঞতা নেই৷ তিনি ব্যাংক থেকে টাকা ধার নেননি। কে এই ভদ্রলোক, যিনি আমার ঘুম কেড়ে নিয়েছেন?

অন্যদিকে, আমি খুব ভাগ্যবান যে আমার একটি সুখী পরিবার আছে। টাকা দিয়ে যা কেনা যায় তার সবকিছুই আমি কিনতে পারি। আমার জীবন এমন যা নিয়ে আমি গর্বিত হতে পারি এবং এটি আমাকে অতিরিক্ত অহংকারী করে তুলতে পারে।

কিন্তু, আমি যদি একধাপ পিছিয়ে হরেকালা হাজাব্বার বর্ণনা এবং আমার জীবনের তুলনা করি, আমি ভাবি যে আমার জীবনের কোনো মূল্য আছে কি না?

একজন ব্যক্তি যিনি প্রতিদিন ১০০-১৫০ টাকা আয় করেন এবং বাড়ির ৫ জনের দায়িত্ব থাকা সত্ত্বেও তিনি টাকা বাঁচিয়ে স্কুলটি তৈরি করেন। কি দারুণ উচ্চমানের লক্ষ্য বা গোল।

তাঁর কোন মার্সিডিজ, পোর্শে, BMW বা অন্য কোন বড় গাড়ি নেই। তাকে আশ্রয় দেওয়ার জন্য কোনও বড় ঘর নেই। তারপরও তিনি চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন। আর এত অল্প আয়ে একটি স্কুল গড়ে তুলেছেন। এত উঁচু লক্ষ্য!!!!

কিন্তু আমার মতো একজন মানুষ, যিনি মানুষের জন্য কিছু করছেন না। আমার জীবন এতই বিশৃঙ্খল, জটিল এবং এমন কিছুতে পূর্ণ যে কারো উপর কোন প্রভাব নেই। আমার অনেক ইগো আছে, আমি আমার চারপাশের অনেক লোকের সাথে খুব উদাসীনভাবে আচরণ করি। আমি বিভিন্ন ভুলের জন্য অভিযোগ করি।

এই সব আমাকে ভাবতে বাধ্য করছে যে আমার জীবনের কোন মূল্য আছে কি? কেন আমি এই পৃথিবীতে আমার সময় এত নিরর্থকভাবে কাটাচ্ছি? আমি হরেকাল হাজাব্বার চেয়ে বহুগুণ বেশি টাকা আয় করি। কিন্তু এর কি কোন মূল্য আছে?

আমি আশা করি আমরা একদিন এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে শুরু করতে পারব। আমি আশা করি সর্বশক্তিমান আমাকে তা করার বুদ্ধি দেবেন।

আমি অনুভব করি যে আমার বিবেক মাঝে মাঝে আমাকে বিরক্ত করে। কিন্তু, হরেকাল হাজাব্বার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা আমার মনে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে।

আমি বিখ্যাত কন্নড় কবি ড. জি.এস.-এর নিম্নলিখিত কথাগুলো সংক্ষেপে বলতে চাই।

“কিছু মানুষ নিজের জন্য বাঁচে…

কিছু মানুষ বেঁচে থাকে তাদের শখের জন্য…

এবং বেশিরভাগ মানুষ জানে না তারা কিসের জন্য বেঁচে থাকে…”

Next articleসঠিক কুকুরকে খাওয়ান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here